রুপচর্চায় চন্দনের ঔষধি গুণাগুণ

শনিবার ডিসেম্বর ২১, ২০১৯ ১০:০১

পাতাটি ২১১ বার পড়া হয়েছে।

চন্দনের অসাধারণ গুণ
একটি সুগন্ধি গাছের নাম চন্দন। ভারত, ইন্দোনেশিয়া, অস্ট্রেলিয়া সহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে চন্দন গাছ দেখতে পাওয়া যায়। ভারতে চন্দনকে পূণ্য অর্জনের উপকরণ হিসেবে সম্মান করা হয়। কপালে চন্দনের ফোটা ছাড়া পুজা শুদ্ধ হয় না। আয়ুর্বেদিক চিকিৎসার ক্ষেত্রেও চন্দনের বহুল ব্যবহার রয়েছে।

ঔষধি গুণাগুণ সম্পন্ন চন্দনের রূপচর্চার জন্য খ্যাতি রয়েছে যুগ যুগ ধরে। প্রাচীনকালে রূপচর্চার অন্যতম উপাদান ছিল চন্দন। মোট কথা, ত্বকের বিভিন্ন সমস্যায় চন্দন বেশ উপকারি। চন্দনের অনেক গুণ। বলি রেখা দূর করতে চন্দনের রয়েছে অসাধারণ কারিশমা। ত্বকের রোগে পোড়া ভাব দূর করতে চন্দন বেশ উপকারি। শসার রস, চন্দনের গুড়া, দই ও গোলাপজল এক সঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে রোদে পোড়া ত্বকে লাগিয়ে রাখুন ২০ মিনিট। তারপর ঠান্ডা পানি দিয়ে ত্বক ধুয়ে ফেলুন। ব্যস ত্বকের রোদে পোড়া ভাব দূর হয়ে যাবে।

ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে চন্দনের রয়েছে অসাধারণ কারিশমা। মসৃণ ও উজ্জ্বল ত্বকের জন্য হলুদ বাটা ও চন্দনের গুড়ো মিশিয়ে লাগান। ২০ মিনিট পর ঠাÐা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এভাবে নিয়মিত কিছু দিন ব্যবহার করতে থাকুন। দেখবেন আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা বেড়ে গেছে।

আপনার যদি ডার্ক সার্কেল থাকে তাহলে সামান্য পরিমাণ চন্দনের গুড়ার সঙ্গে গোলাপ জল মিশিয়ে চোখের চারপাশে লাগান। এভাবে সারারাত রেখে সকালে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। আশা করি মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যে আপনার চোখের চারপাশের কালো দাগ দূর হয়ে যাবে।

মুখের অবাঞ্ছিত দাগ দূর করতেই চন্দনের রয়েছে অসাধারণ কারিশমা। ডিমের কুসুম, মুধু ও চন্দন গুড়া একসঙ্গে মিশিয়ে মুখে লাগালে মুখের অবাঞ্ছিত দাগ দূর হয়। প্রতিদিন দুই চা চামচ চন্দনের গুড়া ও গোলাপ জল মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিন। এবার এই মিশ্রণ মুখে মেখে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এভাবে কিছুদিন ব্যবহার করলে আপনার মুখের অবাঞ্ছিত দাগ দূর হয়ে যাবে।

শুষ্ক ত্বকের জন্য
শুষ্ক ত্বকের জন্য বাড়তি যতœ প্রয়োজন। শুষ্ক ত্বকের ক্ষেত্রে চন্দনের সঙ্গে মধু ও দুধের মিশ্রণ ব্যবহার করলে উপকার পাওয়া যায়। দুধে আছে ল্যাকটোজেন ও মধুতে আছে অ্যান্টিবায়েটিক উপাদান। চন্দনের সঙ্গে এই দুটি উপদান মিশিয়ে মুখ, হাত ও পায়ে ব্যবহার করলে ত্বক হয়ে উঠবে সতেজ ও কোমল।

তৈলাক্ত ত্বকের জন্য
তৈলাক্ত ত্বকের ক্ষেত্রে চন্দনের সঙ্গে গোলাপজল মিশিয়ে হাতে পায়ে, মুখে ব্যবহার করলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ে।

শুধুমাত্র সংবেদনশীল ত্বকের জন্য
যাদের ত্বক সংবেদনশীল তাদের উচিৎ রূপচর্চার ক্ষেত্রে বেশি সচেতন থাকা। সংবেদনশীল ত্বকের ক্ষেত্রে চন্দনের গুড়ার সাথে হালকা টক দই মেখে তা ত্বকে ব্যবহার করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

মতামত জানান