আকাশ আমার জন্য একটা নীল শাড়ি এনে হাতে দিলো আর বললো কাল এটা পড়ে আসবে আমরা ঘুরতে যাবো। এই বলে সে চলে গেলো আর আমি থ হয়ে তাকিয়েই রইলাম। সকাল হলো আমিও মনের আনন্দে ওর দেয়া শাড়িটা বের করলাম আর গায়ে জড়াতে লাগলাম মনে হচ্ছিলো ওর সংস্পর্শ অনুভব করছিলাম। একআরও পড়ুন

৫ম পাতার পর… রাত এগারোটা দশ মিনিট। আকাশ কে অনলাইনে দেখে নক করলাম- কোথায় তুমি? সে বললো- আমি বাইরে আছি। – এখোনো বাইরে? কি করছো? – বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিচ্ছি। – ওহ আচ্ছা, বাসায় কখন যাবে? – কিছুখনের মধ্যেই চলে যাবো। – আচ্ছা বাসায় গিয়ে নক দিও। – ঠিক আছে।আরও পড়ুন

৪র্থ পাতার পর… বান্ধবীদের মুখে অনেক শুনেছি ভালোবাসার মানুষ যখন বুঝতে পারে অপর দিকেও ভালোবাসা বরাবর আছে তখনি অবহেলা শুরু হতে থাকে। এখন আমিও কথাটির প্রমান ধীরে ধীরে পাচ্ছি। আকাশ যখন বুঝতে পারলো আমার মনেও তার জন্য ভালোবাসার জন্ম হয়েছে তখন থেকে তার আমার প্রতি অবহেলা শুরু হয় (যা আমারআরও পড়ুন

৩য় পাতার পর…. প্রতিদিন কথা হতো না আমাদের, ব্যস্ততার কারনে। মাঝেমাঝে রাতে ভালোমন্দ কথা হতো সাথে কিছু প্রেমালাপও। এভাবে দিন কাটতে লাগলো আমরাও অনেকটা ক্লোজ হতে লাগলাম। আকাশ কে মনে মনে আমিও চাইতে লাগলাম তাকে প্রকাশ্য ভাবে বলা হয় নাই তবু ভালো লাগাটা মনে মনে গভীর হতে লাগলো। একদিন দুজনেআরও পড়ুন

তিন বন্ধু বাজারে যাচ্ছিলো। যাওয়ার পথে চারটা সোনার বার/টুকরা পেলো। সোনা পেয়ে তিন বন্ধু মহাখুশি। এই সোনা বিক্রি করে অনেক টাকার মালিক হবে আরো অনেক চিন্তা করতে লাগলো। এর মাঝে তাদের খুব খিদা পাইছে তখন এক বন্ধুকে বাজারে পাঠালো খাবার আনতে বাকি দুই বন্ধু বসে বসে কিভাবে সোনা ভাগাভাগি করবেআরও পড়ুন

২য় পাতার পর….. ভালোমন্দ জানার পর আকাশ বললো- একটা কথা বলতে চাই যদি মনে কিছু না নেন, মনে মনে ভাবলাম কি কথা বলবে কিজানি, তবুও বললাম ঠিক আছে বলেন। সে বললো- আপনি বিয়ে করছেন না কেন ? তার এমন প্রশ্নে কিছুটা ইতস্তত হলেও উত্তর দিলাম- করবো, সময় হলে। সে বললো-আরও পড়ুন

১ম পাতার পর…. কিছুদিন পর আবার এক রাতে মেসেজ এলো – কেমন আছেন? উত্তরে বললাম – ভালো আছি। আপনি? আকাশ- আমিও ভালো। কি করছেন? আমি- কিছুনা, ঘুমাতে যাচ্ছি। আকাশ- ওহ আচ্ছা, একা ঘুমান? আমি- জি আকাশ- আপনার আর ভাইবোন নেই? আমি- না আকাশ- তাহলে তো অনেক আদরের আপনি। আমি- মোটামুটি,আরও পড়ুন

রাতে শুয়ে শুয়ে ফেসবুক দেখছিলাম। হঠাৎ এক অচেনা আইডি থেকে মেসেজ আসলো— হায়, কেমন আছেন? আইডির নাম অমাবস্যার চাঁদ, প্রোফাইল ছবি দেখে চিনতে পেরেছি মানুষ টাকে। রিপ্লাই দিলাম – ভালো আছি, আপনি কেমন আছেন? সেও উত্তর দিলো- ভালো আছি, আমাকে চিনতে পেরেছেন? আমি বললাম – জি চিনেছি, আপনি আকাশ। সেআরও পড়ুন

করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দিনে দিনে বেড়েই চলছে। আর আক্রান্তদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে বৃদ্ধরা থাকলেও তরুণরা এ ঝুঁকির বাইরে নয়। ফলে তরুণদেরও সমান তালে সতর্ক থাকার আহবান জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সামাজিক মেলামেশা বা যোগাযোগের মাধ্যমে এই ভাইরাস ছড়ানোর বিষয়ে সতর্ক থাকা উচিত সবার। বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশ লকডাউন হওয়াআরও পড়ুন

৩য় পর্বের পর… কয়েকবার ভেবেছি তুলিদের বাসায় যাব। মৌলভীবাজার, শ্রীমঙ্গল ঘুরে আসবো। নানান কাজের ঝামেলায় আর যাওয়া হলো না। ্অনার্স মাষ্টার্স শেষে তুলি সিলেট গেলো বি,এড করতে। এর মাঝে জানলাম তুলির বিয়ের কথা চলছে। কদিন পর তুলি ফোনে বললো পারিবারিক ভাবে তাদের বিয়ে হয়েছে তবে কোনো ্অনুষ্ঠান এখন হয় নি।আরও পড়ুন

২য় পর্বের পর… ২০১৬ সালের দুর্গাপূজায় কুমিল্লা আসবে বলে জানালো তুলি। শুনে আনন্দ লাগছিলো দীর্ঘ দশ বছর পর তুলির সাথে দেখা হবে। ্অনেক পরিকল্পনা করতে লাগলাম বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়াবো, গল্প করবো, খাবো, এত বছরের কত যে কথা জমে আছে। ্অবশেষে তুলি এলো পূজায়। আমাদের ্অপেক্ষার ্অবসান হলো। আমার তেমনআরও পড়ুন

১ম পর্বের পর… তুলির আর আমার একটা নেশা ছিলো তখন, আমাদের কুমিল্লার জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী আসিফের গানের কেসেট সংগ্রহ করা। যখনি আসিফের কোন নতুন ্অ্যালবাম বের হতো আমরা কেনার জন্য বেকুল হয়ে যেতাম। আমাদের স্কুলের পাশে একটা কেসেট দোকান ছিলো “মাইশা মিউজিক” সেখান থেকেই আমি আর তুলি কেসেট নিতাম। সেই কেসেটওআরও পড়ুন